শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১, ০৩:৫৪ অপরাহ্ন

বাংলাদেশি ও রোহিঙ্গা ইস্যুতে সরগরম হায়দরাবাদ কর্পোরেশন নির্বাচন!

কর্পোরেশন নির্বাচন!

রাত পোহালেই মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) দ্য ‘গ্রেটার হায়দরাবাদ মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন’ (জিএইচএমসি) নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। কিন্তু একটা স্থানীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করেও বাংলাদেশি ও রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ইস্যুতে সরগরম হয়ে উঠল সেখানকার নির্বাচনী প্রচারণা।

১৫০ আসনের জিএইচএমসি নির্বাচনী প্রচরণার শেষ দিন রবিবার নিজামের শহরে উপস্থিত ছিলেন ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। ভাগ্যলক্ষী মন্দির দর্শন, রোড শো’এর পাশাপাশি সংবাদ সম্মেলনেও উপস্থিত ছিলেন তিনি।

গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে হায়দরাবাদের বেআইনি অনুপ্রবেশ ইস্যুতে ‘অল ইন্ডিয়া মজলিস-ই-ইত্তেহাদুল মুসলিমিন’ (এআইএমআইএম) সভাপতি তথা দলের সাংসদ আসাদুদ্দিন ওয়েইসিকেই দায়ী করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

হায়দরাবাদে বেআইনিভাবে রোহিঙ্গা, বাংলাদেশি ও পাকিস্তানি অনুপ্রবেশকরীদের বসবাস ও কর্মসংস্থানের অভিযোগ দীর্ঘদিনের। কেন্দ্রের বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকার তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার চেষ্টা করলেও তাতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ ওঠে আসাদুদ্দিনের দলসহ বিরোধীদের বিরুদ্ধে। আসাদুদ্দিনের বক্তব্য, এখানে যদি বেআইনিভাবে রোহিঙ্গারা বসবাসই করে তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে অমিত শাহ কি করছেন?

সে ব্যাপারেই গতকাল সাংবাদিকদের অমিত শাহ বলেন ‘আমি ব্যবস্থা নিলে সংসদে ওরা (এআইএমআইএম সহ বিরোধীরা) হট্টগোল করে।

আপনারা এটা দেখেননি, কিভাবে ওরা কান্নাকাটি জুড়ে দেয়? আসাদুদ্দিনই লিখিতভাবে আমায় জানাক যে রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের বিতাড়ন করতে হবে। তারপর আমি পদক্ষেপ নেবো। শুধুমাত্র নির্বাচনের প্রচারণার সময় এই কথা বললেই হয় না। যখন সংসদে অনুপ্রবেশকারীদের বিতাড়নের ব্যাপারে আলোচনা হয় তখন কারা এদের পক্ষ নেয়? গোটা দেশবাসী সেটা জানে।

সকলে লাইভ টেলিভিশনে দেখেছে। ’

বিকালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ওই বক্তব্যের পরই রাতেই পাল্টা টুইট করেন আসাদুদ্দিন। অমিত শাহকে লক্ষ্য করে তিনি লেখেন ‘ইতিহাসে সম্ভবত তিনিই প্রথম কোন মন্ত্রী যাঁর নিজের কাজ করতে গেলে একজন সাংসদের চিঠি লাগে! ওনার নিজের দলই (বিজেপি) হায়দরাবাদে বেআইনি অনুপ্রবেশকারী থাকার কাল্পনিক কাহিনী তৈরি করেছে সেখানে ওদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে কিভাবে আমার সম্মতি চাইছেন! আসামেও নাকি ৪ লাখ উইপোকার অস্বিস্ত আছে- এগুলো সবই শাহের ছেলেমানুষি কল্পনাপ্রসূত এবং শুধুমাত্র ভোটের কথা মাথায় রেখে। ’

 

 

আরোও পড়ুন

 

 

কক্সবাজারে ১৪ বছরেও শেষ হয়নি দুই সেতুর নির্মাণ কাজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ